রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে মধু

বিভিন্ন রোগের চিকিৎসায় ভেষজ দ্রব্যের সঙ্গে মিশ্রিত করে সফলতার সাথে ব্যবহার হয়ে আসছে ‘মধু’। মধুতে রয়েছে গ্লুকোজ, মন্টোজ, খনিজ লবন ও অ্যামাইনো এসিড থেকে শুরু করে চর্বি এমনকি প্রেটিন, যা আপনার শরীরে শক্তি জোগাতে সহায্য করে।

জার্মান হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ ড. ই কচ বলেছেন, ‘উপযুক্ত ঘাস খেয়ে ঘোড়া যেমন তেজী হয় তেমনি নিয়মিত সকালে এক চা-চামচ করে খাঁটি মধু খেলে হৃদপিন্ড শক্তিশালী হয়। এছাড়াও মধু আয়ুও বৃদ্ধি করে।’ এছাড়া মধু ওজন কমাতে সহায়তা করার পাশাপাশি ব্যথা নিরাময়ে কিংবা হজম শক্তি বাড়াতেও বেশ কার্যকর।

শরীরের বাইরের কোন অংশের ক্ষততে মধুর প্রলেপ লাগালে অনেক সময় মলমের চেয়ে বেশি উপকার পাওয়া যায়। পানিতে অল্প মধু মিশিয়ে খেলে পাকস্থলীর ক্ষত সারে। এতে ব্যাকটেরিয়ারোধী পদার্থ আছে যা স্বাভাবিকভাবেই পেটের আলসারের বৃদ্ধি মন্দীভূত করে। মধু পাকস্থলীর প্রদাহ হ্রাস করার জন্য উত্তম উপাদান। এছাড়াও মধু অন্যান্য রোগ রোধ করতে সাহায্য করে। সকালে এক টেবিল চামচ কাঁচা মধু খেয়ে নিন।

যারা খুব মোটা হচ্ছেন তাদের মেদ কমানোর জন্য মধুর সঙ্গে সামান্য পানি মিশিয়ে খেলে সুফল পাওয়া যায়। দুর্বল শিশুকে এক ফোঁটা মধু দুধের সঙ্গে মিশিয়ে দিনে দুইবার খাওয়ালে তার স্বাস্থ্য ভালো হয় ও শক্তি লাভ করে। মৌরির পানিতে মধু মিশিয়ে পান করলে দূষিত বায়ু পেট থেকে বেরিয়ে যায়।

এক কাপ দুধে এক চা চামচ মধু মিশিয়ে রোজ সকালে খেলে শক্তি বৃদ্ধি পায়। মধুর সঙ্গে গুড়ের রস মিশিয়ে খেলে বমি বন্ধ হয়ে যায়। শিশুদের দৈহিক গড়ন, রুচি বৃদ্ধি, ওজন বৃদ্ধি ও পেট ভালো রাখার জন্য প্রত্যহ এক চা চামচ মধু গরম দুধ ও গরম পানির সঙ্গে নাশতা ও রাতের খাবারের সঙ্গে দিতে হবে। আমাশয় ও পাতলা পায়খানা থাকলে গরম পানিতে আড়াই চা-চামচ মধু মিলিয়ে শরবত বানিয়ে বারবার সেবন করতে হবে।






Related News

  • শেখ রাসেলের সমাধিতে আওয়ামী লীগের শ্রদ্ধা
  • মেকআপ তুলতে ঘরোয়া তিন উপাদান
  • ঘুমানোর আগে যে ৫ খাবার খাওয়া উচিত নয়
  • রসুনে কমবে ওজন
  • আমলকির অবিশ্বাস্য গুণ
  • কিডনির সমস্যা দূর করে এলাচ
  • যেসব রোগ থেকে মুক্তি দেবে কাঠবাদাম
  • %d bloggers like this: