ঘরে বসে পরিবারের সঙ্গে ঈদের আনন্দ উপভোগ করুন: প্রধানমন্ত্রী

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে সবাইকে ঘরে বসে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে ঈদের আনন্দ উপভোগ করার অনুরোধ জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, সামর্থ্যবানদের প্রতি আহ্বান জানাই, এই দুঃসময়ে আপনার দরিদ্র প্রতিবেশি, গ্রামবাসী বা এলাকাবাসীর কথাও ভুলবেন না।

রোববার সন্ধ্যায় ঈদুল ফিতর উপলক্ষে জাতির উদ্দেশ্যে দেয়া ভাষণে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

এসময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ঈদুল ফিতর মুসলমানদের ধর্মীয় উৎসব হলেও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বাংলাদেশে সব ধর্ম ও বর্ণের মানুষ এ উৎসবে সমানভাবে শামিল হন। ঈদের আনন্দ সবাই ভাগাভাগি করে উপভোগ করেন। কিন্তু এ বছর এক ভিন্ন প্রেক্ষাপটে ঈদুল ফিতর উদযাপিত হচ্ছে।

শেখ হাসিনা বলেন, করোনাভাইরাস প্রতিরোধে এ বছর আমরা সব ধরনের গণ-জমায়েতের উপর বিধিনিষেধ আরোপ করেছি। কাজেই স্বাভাবিক সময়ের মতো এবার ঈদুল ফিতর উদযাপন করা সম্ভব হবে না। ঈদগাহ ময়দানের পরিবর্তে মসজিদে মসজিদে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঈদের নামাজ আদায় করার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দীর্ঘ এক মাস সিয়াম সাধনার পর আনন্দ উৎসবের জন্য মহান আল্লাহতায়ালা ঈদুল ফিতরের দিন নির্ধারণ করে দিয়েছেন। এক মাসের কষ্ট আর ক্লান্তিকে ভুলে গিয়ে এদিন আনন্দ ও খুশিতে মেতে ওঠার দিন। এবছর আমরা সশরীরে পরস্পরের সঙ্গে মিলিত হতে বা ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করতে না পারলেও টেলিফোন বা ভার্চুয়াল মাধ্যমে আত্মীয়-স্বজনের খোঁজ-খবর নেবো।

‘দেশে করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে যারা কাজ করতে গিয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিপুল সংখ্যক সদস্য, ডাক্তার ও স্বাস্থ্যকর্মী, প্রশাসনের উল্লেখযোগ্য সংখ্যক কর্মকর্তা, ব্যাংক কর্মী এবং সংবাদকর্মী করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন। এছাড়া বেশ কয়েকজন ডাক্তার ও স্বাস্থ্যকর্মী, পুলিশ ও আনসার বাহিনীর সদস্য, প্রশাসনের কর্মকর্তা এবং ব্যাংক ও সংবাদকর্মী এরইমধ্যে মারা গেছেন। আমি তাদের রুহের মাগফিরাত কামনা করছি এবং শোক-সন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি।’

ঈদ খুশিতে মেতে ওঠার দিন হলেও এবার রোগের প্রাদুর্ভাবের কারণে প্রেক্ষাপট যে ভিন্ন, সেটা সবাইকে উপলব্ধি করার আহ্বান জানান তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, করোনা নামক এক প্রাণঘাতী ভাইরাস সারাবিশ্বে মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়েছে। তার উপর ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের তাণ্ডবে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বেশ কয়েকটি জেলা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

এছাড়া পুলিশ, বিজিবি, আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী, সশস্ত্রবাহিনীর সদস্য এবং কেন্দ্রীয় ও মাঠ প্রশাসনের কর্মকর্তা, যারা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ত্রাণসামগ্রী বিতরণসহ সরকারের নানা কর্মসূচি বাস্তবায়ন করে যাচ্ছেন, তাদেরও শুভেচ্ছা জানান তিনি।

প্রধানমন্ত্রী ভাষণ শেষ করেন জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ‘ঈদের গান’ ‘ও মন রমজানের ওই রোজার শেষে এল খুশির ঈদ’ আবৃত্তির মধ্য দিয়ে।






Related News

  • আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করার জন্য সরকার সব করেছেন: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
  • কোনো দেশই করোনা মোকাবিলায় প্রস্তুত ছিল না: তথ্যমন্ত্রী
  • ভুতুড়ে বিল নিয়ে দুশ্চিন্তা করবেন না: বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী
  • রেড জোন এলাকায় সাধারণ ছুটি কঠোরভাবে পালনের আহ্বান কাদেরের
  • করোনার মধ্যেও উন্নয়নের প্রচেষ্টা চালাচ্ছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী
  • সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন আইসিইউতে
  • দেশকে জোনে ভাগ করা হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
  • %d bloggers like this: