স্কাউট

আদর্শ নাগরিক তৈরিতে কাজ করছে ইবি স্কাউট গ্রুপ

আদর্শ নাগরিক তৈরিতে কাজ করছে ইবি স্কাউট গ্রæপ

ছাত্রজীবনে নিজেকে সময়োপযোগী করে তোলা, বিপথে চলে যাওয়া থেকেআত্মরক্ষা করা, নেতৃত্ব গঠন ও নিজের ভেতর সেবাধর্মী মানসিকতা গড়ে তোলার জন্য স্কাউটিং হচ্ছে বিশ্বব্যাপী একটি অরাজনৈতিক ও স্বেচ্ছাসেবামূলক যুগোপযোগী আন্দোলন। কর্মমুখীবিনোদন আর সময়কে সঠিকভাবে কাজে লাগানোর সেরা সংগঠন হচ্ছে স্কাউট। ১১০ বছর পূর্বে‘রবার্ট স্টিফেনসন স্মিথ লর্ড ব্যাডেন পাওয়েল অব গিলওয়েলে’র মানবতার সেবায় সূচনা করা স্কাউট আন্দোলন অনেক মানুষের জীবনকে পাল্টে দেয়। বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগ, মানবতার সেবায় সদা প্রস্তুত রয়েছে পৃথিবীর সকল স্কাউট সদস্য।
ঠিক তেমনিভাবেই ১৯৯৫ সালে প্রতিষ্ঠা লাভ করার পর থেকেই সেবার মানসিকতা ও কর্মদক্ষতা দ্বারা মন কেড়েছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় রোভার স্কাউটস্ গ্রæপের সদস্যরা। গ্রæপের সভাপতি বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. হারুন-উর-রশিদ আসকারী, সম্পাদক প্রফেসর ড. রুহুল কে. এম. সালেহ এবং তিনজন অত্যন্ত দক্ষ ও বন্ধুসুলভ রোভার স্কাউট লিডারের নেতৃত্বে এগিয়ে যাচ্ছে এই গ্রæপটি।বর্তমানে এই গ্রæপে দুইটি ছেলেদের ইউনিট এবং একটি মেয়েদের ইউনিট রয়েছে।বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন দিবস উদযাপনে শৃঙ্খলা রক্ষার কাজে, বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় নিষ্ঠার সাথে অতন্দ্র-প্রহরীর ভূমিকা পালন করে থাকে রোভার সদস্যরা। ইতিমধ্যেইবি রোভারের ‘সাইকেল সার্ভিস’ নামে একটি সেবা সর্বমহলের মাঝে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করেছে। ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে ইচ্ছুক এমন পরীক্ষার্থী যদি কোন কারণে ক্যাম্পাসে পৌঁছতে দেরী করে ফেলেন, তবে রোভার সদস্যরা নিজেদের সাইকেলে উক্ত পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষা কেন্দ্রে পৌঁছে দিয়ে থাকেন। এটি ইবি রোভারদের সাইকেল সার্ভিস নামে পরিচিত।
সপ্তাহের প্রতি বুধবার দুপুর বারটায় রোভার স্কাউট ডেনে সাপ্তাহিক ক্রু-মিটিংয়ে একত্রিত হয় রোভার সদস্যরা। এখানে তারা জীবনের জন্য গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন প্রশিক্ষণ নেয়। প্রতিটি প্রশিক্ষণ হয় বিনোদনের মাধ্যমে যার ফলে মনের মধ্যে কখনো একঘেঁয়েমিতা আসতে পারেনা। প্রয়োজনীয় দড়ির কাজ শেখা, বিভিন্ন ধরনের রান্না শেখা, প্রাথমিক চিকিৎসা শিক্ষা লাভ, নিজ নিজ ধর্ম চর্চার মাধ্যমে ইবি রোভার সদস্যরা দক্ষ ও আদর্শ মানুষে পরিণত হয়ে উঠছে। এছাড়াও রক্তদান, ক্যাম্পাসে পরিস্কার অভিযান, বৃক্ষরোপণ অভিযান, মাছের পোনা অবমুক্তকরণ, শীতবস্ত্র বিতরণসহ বিভিন্ন সমাজ উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড পরিচালনা করে থাকে এই গ্রæপের সদস্যরা।
১৯৭২ সালের ৯ এপ্রিল গঠিত হয় বাংলাদেশ বয় স্কাউট সমিতি। একই বছরের ৯ সেপ্টেম্বর গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের মহামান্য রাষ্ট্রপতির ১১১ নং অধ্যাদেশ বলে বাংলাদেশ বয় স্কাউট সমিতিকে সরকারি স্বীকৃতি প্রদান করা হয়। ১৯৭৪ সালের ০১ জুন বিশ্ব স্কাউট সংস্থা বাংলাদেশ বয় স্কাউট সমিতিকে ১০৫ তম জাতীয় স্কাউট সংস্থা হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান করে। ১৯৭৮ সালের ১৮ জুন পঞ্চম জাতীয় কাউন্সিল সভায় বাংলাদেশ বয় স্কাউট সমিতির নাম পরিবর্তন করে ‘বাংলাদেশ স্কাউটস’ করা হয়। বাংলাদেশ স্কাউটস দেশের ৬৪ টি জেলার সকল উপজেলায় স্কাউটিং কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। বর্তমানে বাংলাদেশে কাব স্কাউট, স্কাউট, রোভার স্কাউট এবং বয়স্ক নেতা মিলিয়ে ১২ লক্ষ ৫ হাজার ৩৬ জন সদস্যরয়েছে। পরিসংখ্যানের ভিত্তিতে সদস্য সংখ্যার দিক থেকে বিশ্বে বাংলাদেশ স্কাউটস-এর অবস্থান পঞ্চম।

লেখক: আখতার হোসেন আজাদ
সাধারণ সম্পাদক (ইউনিট কাউন্সিল),
ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় রোভার স্কাউটস গ্রুপ।
ইমেইল: iu.azad@yahoo.com

About the author

szaman

Add Comment

Click here to post a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার

November 2018
S M T W T F S
« Oct    
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
252627282930